ঢাকা, মঙ্গলবার ১৬ই আগস্ট ২০২২ , বাংলা - 

তেঁতুলিয়ায় সাংবাদিককে মারধর ইউপি চেয়ারম্যানের

আমিরুলইসলাম পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি

2022-07-10
তেঁতুলিয়ায় সাংবাদিককে মারধর ইউপি চেয়ারম্যানের

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় বুড়াবুড়ি ইউপি চেয়ারম্যানের হাতে এক সাংবাদিককে মারধর করে লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল (৮ জুলাই) শুক্রবার রাতে বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারেক হোসেনের হাতে মারধরের লাঞ্চিত হয়েছেন দৈনিক সময়ের আলো ও অনলাইন এর সাংবাদিক আল আমিন। এ ঘটনায় বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন তিনি । অভিযোগে জানা যায়, শুক্রবার দুপুর ৩টার দিকে চুরির অপবাদ দিয়ে সাংবাদিক আল আমিনের বড় ভাই আলমগীর হোসেনকে চেয়ারম্যান তারেক হোসেনের নির্দেশে গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে আশ্রয়ন প্রকল্পের মনিকো গুচ্ছগ্রামের এক গোপন ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে স্থানীয় লোকজনের বিষয়টি জানাজানি হলে প্রায় ৮ ঘন্টা অবরুদ্ধ থেকে বের করে তাকে রাত সাড়ে ১১টার দিকে চেয়ারম্যানের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাকে চুরির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে জেলহাজতে প্রেরণে ষড়যন্ত্রের ছক আঁকেন চেয়ারম্যান।

খবর পেয়ে সাংবাদিক আল আমিন তার ভাইকে সেখান থেকে উদ্ধার করতে গেলে তার উপর চড়াও হয়ে উঠেন চেয়ারম্যান তারেক হোসেন। পরে চেয়ারম্যানের হুকুমে সাংবাদিককে গ্রাম পুলিশ দেলোয়ার হোসেন ও রওশন বেধরক মারধর করে প্রাণনাশের হুমকি প্রদর্শন করা হয়। এ সময় সাংবাদিকতার স্বাদ চিরতরে মিটাইয়া দেয়ার হুমকি দিয়ে মারধর করা হয়। পরে সাংবাদিক ও তার ভাইকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে ফেলে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করে নেন চেয়ারম্যান তারেক হোসেন।

নির্যাতিত সাংবাদিক আল আমিন জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে আমার ভাইকে চুরির অপবাদে আটকে রাখার খবর পেয়ে চেয়ারম্যানের বাড়িতে উপস্থিত হতেই আমার উপর চড়াও হন চেয়ারম্যান। এক গ্রাম পুলিশকে আমাকে রশি দিয়ে বেঁধে রাখার হুকুম দেন তিনি। চেয়ারম্যান হুমকি আমার সাংবাদিকতাকে চিরতরে মিটাইয়া দেয়ার হুমকি দিয়ে দুই গ্রাম পুলিশকে আমার শার্টের কলার ধরে এলোপাতারি চড় থাপ্পর ও কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এ সময় আমাকেও মামলা-মোকাদ্দমা দিয়ে ফাঁসিয়ে দেয়ার হুমকি দেন ওই চেয়ারম্যান। আমি এর উপযুক্ত বিচার চেয়ে শনিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি অভিযোগ দিয়েছি।চেয়ারম্যানের হাতে সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়টিকে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রেসক্লাব, জার্নালিস্ট ক্লাব, রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ সাংবাদিক সংগঠনগুলো। সাংবাদিক সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা এ ঘটনায় ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তারা।

বুড়াবুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান তারেক হোসেন জানান, ওই সাংবাদিকের বড় ভাইকে চুরির অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছিল। কিন্তু সাংবাদিক আল আমিন আমার উপর উত্তেজিত হয়ে আমার ও আমার ইউনিয়নের গ্রামবাসির বিরুদ্ধে মামলা দেয়ার হুমকি প্রদর্শন করে। এতে গ্রাম পুলিশ দ্বারা মারধরের শিকার হতে পারেন। তবে তিনি খুবই উদ্ধ্যত আচরণ করার কারণে চড়-থাপ্পর দিয়ে শাসন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, এ প্রসঙ্গে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় বুড়াবুড়ি ইউপি চেয়ারম্যানের হাতে এক সাংবাদিককে মারধর করে লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল (৮ জুলাই) শুক্রবার রাতে বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারেক হোসেনের হাতে মারধরের লাঞ্চিত হয়েছেন দৈনিক সময়ের আলো ও অনলাইন বার্তাবাজার ডটকমের সাংবাদিক আল আমিন। এ ঘটনায় বিচার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন তিনি।

অভিযোগে জানা যায়, শুক্রবার দুপুর ৩টার দিকে চুরির অপবাদ দিয়ে সাংবাদিক আল আমিনের বড় ভাই আলমগীর হোসেনকে চেয়ারম্যান তারেক হোসেনের নির্দেশে গ্রাম পুলিশের মাধ্যমে আশ্রয়ন প্রকল্পের মনিকো গুচ্ছগ্রামের এক গোপন ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখেন। পরে স্থানীয় লোকজনের বিষয়টি জানাজানি হলে প্রায় ৮ ঘন্টা অবরুদ্ধ থেকে বের করে তাকে রাত সাড়ে ১১টার দিকে চেয়ারম্যানের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাকে চুরির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে জেলহাজতে প্রেরণে ষড়যন্ত্রের ছক আঁকেন চেয়ারম্যান।খবর পেয়ে সাংবাদিক আল আমিন তার ভাইকে সেখান থেকে উদ্ধার করতে গেলে তার উপর চড়াও হয়ে উঠেন চেয়ারম্যান তারেক হোসেন। পরে চেয়ারম্যানের হুকুমে সাংবাদিককে গ্রাম পুলিশ দেলোয়ার হোসেন ও রওশন বেধরক মারধর করে প্রাণনাশের হুমকি প্রদর্শন করা হয়। এ সময় সাংবাদিকতার স্বাদ চিরতরে মিটাইয়া দেয়ার হুমকি দিয়ে মারধর করা হয়। পরে সাংবাদিক ও তার ভাইকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে ফেলে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করে নেন চেয়ারম্যান তারেক হোসেন।

নির্যাতিত সাংবাদিক আল আমিন জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে আমার ভাইকে চুরির অপবাদে আটকে রাখার খবর পেয়ে চেয়ারম্যানের বাড়িতে উপস্থিত হতেই আমার উপর চড়াও হন চেয়ারম্যান। এক গ্রাম পুলিশকে আমাকে রশি দিয়ে বেঁধে রাখার হুকুম দেন তিনি। চেয়ারম্যান হুমকি আমার সাংবাদিকতাকে চিরতরে মিটাইয়া দেয়ার হুমকি দিয়ে দুই গ্রাম পুলিশকে আমার শার্টের কলার ধরে এলোপাতারি চড় থাপ্পর ও কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এ সময় আমাকেও মামলা-মোকাদ্দমা দিয়ে ফাঁসিয়ে দেয়ার হুমকি দেন ওই চেয়ারম্যান। আমি এর উপযুক্ত বিচার চেয়ে শনিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি অভিযোগ দিয়েছি।

চেয়ারম্যানের হাতে সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়টিকে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রেসক্লাব, জার্নালিস্ট ক্লাব, রিপোর্টার্স ইউনিটিসহ সাংবাদিক সংগঠনগুলো। সাংবাদিক সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা এ ঘটনায় ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাগ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তারা।

বুড়াবুড়ি ইউপি চেয়ারম্যান তারেক হোসেন জানান, ওই সাংবাদিকের বড় ভাইকে চুরির অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছিল। কিন্তু সাংবাদিক আল আমিন আমার উপর উত্তেজিত হয়ে আমার ও আমার ইউনিয়নের গ্রামবাসির বিরুদ্ধে মামলা দেয়ার হুমকি প্রদর্শন করে। এতে গ্রাম পুলিশ দ্বারা মারধরের শিকার হতে পারেন। তবে তিনি খুবই উদ্ধ্যত আচরণ করার কারণে চড়-থাপ্পর দিয়ে শাসন করা হয়েছে।এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহাগ চন্দ্র সাহা বলেন, এ প্রসঙ্গে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।