ঢাকা, বৃহঃস্পতিবার ১৪ই নভেম্বর ২০১৯ , বাংলা - 

ছাত্রদলের খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ

ষ্টাফরিপোর্টার।।ঢাকাপ্রেস২৪.কম

সোমবার ২৪শে জুন ২০১৯ বিকাল ০৩:৩৭:৫৭

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল-২০১৯ উপলক্ষে খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। রোববার বিকালে ছাত্রদলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন এ তালিকা প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে ছাত্রদলের ওয়েবসাইটে খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হয় এবং কার্যালয়ে তা টানিয়ে দেয়া হয়। তালিকার সঙ্গে প্রার্থীদের আচরণবিধি এবং যোগ্যতাও প্রকাশ করা হয়। খসড়া ভোটার তালিকা অনুযায়ী বরিশাল জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মাহফুজুল আলম মিঠু, সাধারণ সম্পাদক কামরুল আহসান, সিনিয়র সহ সভাপতি তারেক আল ইমরান, যুগ্ম সম্পাদক তৌফিকুল ইসলাম ইমরান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সোহেল রাঢ়ী আসন্ন কাউন্সিলে ভোট দিতে পারবেন। পর্যায়ক্রমে বরিশাল মহানগর সভাপতি রেজাউল করিম রনি, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন কবীর, সিনিয়র সহ সভাপতি তারিকুল ইসলাম তরিক, যুগ্ম সম্পাদক মাহমুদুল হাসান তানজিল, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক তসলিম, ঝালকাঠি জেলা সভাপতি আরিফুর রহমান খান, সাধারণ সম্পাদক গিয়াস সরদার দিপু, সিনিয়র সহ সভাপতি শায়েদ রানা ভূঁইয়া, যুগ্ম সম্পাদক রাকিবুল হাসান সাকি, সাংগঠনিক সম্পাদক মাইনুল ইসলাম রাজিব, পিরোজপুর জেলা সভাপতি হাসান আল-মামুন, সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান শেখ রুবেল, সিনিয়র সহ সভাপতি তানজিদ হাসান শাওন, যুগ্ম সম্পাদক, তানভীর রশিদ বাপ্পি, সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিন কুমার, ভোলা জেলা সভাপতি নূরে আলম, সাধারণ সম্পাদক আল আমিন, সিনিয়র সহ সভাপতি জসিম উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক নিয়াজ মিয়াজী, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম শরীফ, পটুয়াখালী জেলা সভাপতি শফিউল বাশার উজ্জল, সাধারণ সম্পাদক আল হেলাল নয়ন, সিনিয়র সহ সভাপতি জহিরুল ইসলাম শামীম, যুগ্ম সম্পাদক আল আমিন হাওলাদার, সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ ইবনে হাসান সানী, বরগুনা জেলা সভাপতি ফয়জুল মালেক সজীব, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম রনি, সিনিয়র সহ সভাপতি সানাউল্লাহ সানি, যুগ্ম সম্পাদক আকবর হোসেন প্রিন্স, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল-আরিফসহ প্রতিটি ইউনিটের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, প্রথম সহ-সভাপতি, প্রথম যুগ্ম সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদককে ভোটার করা হয়েছে। আহবায়ক কমিটির ক্ষেত্রে আহবায়ক, সদস্য সচিবসহ কমিটির প্রথম ৩ জনকে ভোটার ধরে মোট পাঁচ জনকে ভোটার করা হয়ছে।

নির্বাচনের আচরণ বিধিতে বলা হয়েছে- পত্যেক প্রার্থীকে ব্যক্তিগতভাবে নির্বাচন করতে হবে। কোনো ভাবেই প্যানেল দেয়া যাবে না। কোনো প্রকার পোস্টার, ব্যানার এবং গণমাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা করা যাবে না। কোনো প্রকার সভা, সমাবেশ আপ্যায়ন বা কোন ধরণের উপহার সামগ্রী দেয়া যাবে না। গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার, সংবাদ সম্মেলন ও টকশোতে কোনো প্রার্থী অংশ গ্রহণ করতে পারবে না। প্রার্থীগণ ভোট প্রার্থনার জন্য শুধুমাত্র ভিজিটিং কার্ড বা সাদাকালো এ ফোর সাইজের লিফলেট ব্যবহার করতে পারবেন। নির্বাচনের দিন প্রার্থীগণ অথবা তার কোন সমর্থক কোনো প্রকার মিছিল, সমাবেশ, প্লে-কার্ড, শ্লোগান ভিজিটিং কার্ড এবং লিফলেট বিতরণ করে ভোট প্রার্থনা করতে পারবেন না। কোনো প্রার্থী যদি উল্লিখিত আচরণবিধি লংঘন করেন, তাহলে নির্বাচন কমিশন প্রার্থীতা বাতিলসহ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।

প্রার্থীর যোগ্যতার ক্ষেত্রে বলা হয়েছে- প্রার্থীকে ২০০০ সালের এস.এস.সি. অথবা সমমানের পরীক্ষায় পাশ হতে হবে। তবে রেজিষ্ট্রেশন অবশ্যই ১৯৯৮ সালের হতে হবে। সেক্ষেত্রে প্রমাণের জন্য এস এস সি ও সমমানের পরীক্ষা পাশের সার্টিফিকেট ও রেজিষ্ট্রেশন কপি জমা দিতে হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রত্ব আছে এমন প্রমাণ পত্র অবশ্যই দাখিল করতে হবে। প্রার্থীকে নূন্যতম স্নাতক পাশ হতে হবে এবং পাশের সার্টিফিকেট এর সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে। প্রমাণের জন্য সকল সার্টিফিকেটের মূলকপি সঙ্গে আনতে হবে। প্রার্থীকে অবশ্যই অবিবাহিত হতে হবে। প্রার্থী হতে হলে সংশ্লিষ্ট ইউনিট থেকে প্রাথমিক সদস্য সাবেক অথবা বর্তমান পদের প্রত্যায়ন পত্র দাখিল করতে হবে। যদি কোনো প্রার্থী কাস্টিং ভোটের ১০ শতাংশ ভোট না পায় তাহলে পরবর্তী কমিটিতে কোনোভাবেই অন্তর্ভুক্ত হতে পারবে না। প্রত্যেক প্রার্থীকে অবশ্যই সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের ৫ কপি রঙ্গিন ছবি সত্যায়িতসহ দাখিল করতে হবে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সরাসরি ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত হবেন।

ছাত্রদলের খসড়া তালিকা (লিঙ্ক)