ঢাকা, সোমবার ২৭শে মে ২০১৯ , বাংলা - 

ঈদে মহাসড়কে দুর্ভোগ হবে না:সচিব

ষ্টাফরিপোর্টার।।ঢাকাপ্রেস২৪.কম

বৃহঃস্পতিবার ৯ই মে ২০১৯ দুপুর ০২:১৭:৪০

আসন্ন ঈদ-উল-ফিতরে মহাসড়কে যাত্রীদের দুর্ভোগ হবে না বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু সচিব মো: নজরুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার (৯ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আসন্ন ঈদ-উল-ফিতরে সড়ক-মহাসড়কে যাত্রীদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে প্রস্তুতি সভা শেষে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, 'সারাদেশে আমরা সড়ক ব্যবস্থাপনা নিয়ে শুনানি করেছি। সেখানে বড় কোন সমস্যা আমরা পাইনি। আমাদের ধারণা অন্যবারের চেয়ে এবার অবস্থা অনেক ভাল। আমরা আশা করছি মহাসড়কে এবারের ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন হবে। ভিজিলেন্স টিম থাকবে। কমিটিতে বিআরটিএ, ডিএমপি, পরিবহন মালিক শ্রমিক সমিতির নেতারা থাকবেন। তারা ভাড়া নির্ধারণসহ বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।'

সচিব বলেন, 'ভাসমান হাট বাজারের জন্য অনেকসময় যানজট হয়। আমরা সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিয়ে অনুরোধ জানাব। হাইওয়ে পুলিশও এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে।'

ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচলের বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে তিনি বলেন, 'পরিবহন মালিক ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন না চালানোর বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার কথা বলেছেন। ঈদের আগে থেকে এ বিষয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসবে।'

ঈদের সময় ২৪ ঘণ্টা সিএনজি স্টেশন খোলা থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, 'সিএনজি স্টেশন ঈদের সাতদিন আগে ও পরের পাঁচদিন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে। প্রতিবছরের মতো এবারও জ্বালানি মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে চিঠি দেওয়া হবে।'

তিনি বলেন, 'ঈদের আগের তিনদিন ট্রাক-লরি চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে অন্যান্য বছরের মতো জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক, পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক চলাচলে কিছুটা ছাড় দেয়া হবে। শ্রমিকদের একসঙ্গে ছুটি দেয়ার কারণে অনেক সময় সমস্যা হয়। ফলে তারা ফিটনেসবিহীন যানবাহন ও বাসের ছাদে চলাচল করে। যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না। গার্মেন্টসগুলো পর্যায়ক্রমে ছুটি দিলে গাড়ির বাড়তি চাপ কমান যাবে।'

ঈদের ছয়দিন আগে ও ঈদের পরের চারদিন মন্ত্রণালয়ের কন্ট্রোল রুম খোলা থাকবে বলেও জানা তিনি। বিআরটিসির আরও বাসযুক্ত হবে জানিয়ে নজরুল ইসলাম বলেন, 'মোট ৬০০ বাস আনার কথা রয়েছে। ১৫৮টি বাস আমরা রিসিভ করেছি, রমজান মাসে আরও বাস আসবে। কোথাও ক্রাইসিস হলে সেখানে বাস পাঠানো হয়। তবে কোন রুটে কতটি বাড়তি বাস চলবে তারা এখনই বলা যাচ্ছে না।'